৩.১ যে সকল আয়াত স্পষ্ট এবং ব্যাখ্যার প্রয়োজন রাখেনা



এই আয়াতগুলি সহজেই বোধগম্য এবং ইহাদের কোন ব্যাখ্যার প্রয়োজন হয় না। এইগুলি মূলতঃ আইন, যাহার কিছু কিছু কেবলমাত্র প্রকৃত ইসলামীক রাষ্ট্রেই প্রচলিত হইতে পারে। অন্যগুলি, বিশেষ করিয়া নৈতিক বিধান সমূহ, আইনের উদ্ভব এবং ব্যক্তিগত নীতি বিকাশে ব্যবহৃত হইতে পারে। নিম্নে দৃষ্টান্ত দেওয়া হইল:

(৪:১৩৫) হে বিশ্বাসীগণ! তোমরা আল্লাহর সাক্ষী হিসাবে ন্যায় বিচারে অবিচলিত থাকিও, এমনকি যদি ইহা তোমাদের, অথবা তোমাদের পিতা-মাতার অথবা আত্মীয়-স্বজনের বিরুদ্ধেও যায়, এবং সে বিচার-বস্তু ধনীরই হউক বা দরিদ্রেরই (হউক), কারণ আল্লাহ্ তোমাদের অপেক্ষাও তোমাদের উভয়েরই অধিকতর নিকটে। অতএব আবেগের বশবর্তী হইও না, পাছে তোমরা সত্যভ্রষ্ট হও এবং যদি তোমরা ভ্রষ্ট হও অথবা সত্যপথ ত্যাগ কর, তবে স্মরণ রাখিও যে তোমরা যাহা কর সে বিষয়ে আল্লাহ্ সদা সর্বদা অবিহিত আছেন।

(৬:১৫২) এবং মঙ্গল সাধনের উদ্দেশ্য ব্যতীত এতিমের সম্পত্তির নিকটে যাইওনা, যে পর্যন্ত না সে সাবালকত্ব প্রাপ্ত হয়। ন্যায় অনুসারে পূর্ণ ওজন ও পূর্ণ পরিমান প্রদান কর। আমরা কাহারও উপর তাহার সাধ্যের অতিরিক্ত ভার আরোপ করিনা। এবং যদি তোমরা কথা দাও তাহা পালন করিবে, এমন কি যদি ইহা কোন স্বজনের বিরুদ্ধেও যায়, এবং আল্লাহর সহিত কৃত চুক্তি পালন করিও। আল্লাহ ইহাই তোমাদের আদেশ করেন যাহাতে তোমরা মনোযোগী হও।

উপরোক্ত আয়াতগুলির অর্থ স্বতঃস্ফূর্ত এবং এইগুলি বুঝিতে হাদিস অথবা অন্য কোন সূত্রের প্রয়োজন হয়না। ইহাদের মধ্যে যে পথ নির্দ্দেশ আছে তাহা প্রকৃতই সার্বজনীন, কিন্তু এইগুলি বাস্তব জীবনে প্রবর্তিত করিতে বহু পরিমাণ সাহস ও নৈতিক প্রত্যয়ের প্রয়োজন। জীবনের বিভিন্ন এলাকা ব্যাপী এইরূপ বহু আয়াত ষষ্ট অধ্যায় (কোরানের মূল শিক্ষা সমূহ) এর ৬.১ ও ৬.২ বিভাগে প্রদত্ত হইয়াছে।





Home Next >>