১৩.৬ বর্তমান কালে শরিয়াহ্ আইনের প্রয়োগ



ইহা নিঃসন্দেহে বলা যায় যে, বর্তমান শরিয়ত আইন সমূহ মূলতঃ হাদিস গ্রন্থ হইতে গৃহীত। ইহাতে কোরানের অংশ অতি অল্পই। প্রকৃত পক্ষে, কোরান হইতে গৃহীত আইন সমূহ কোন কোন ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয় কেবলমাত্র আক্ষরিক অর্থে; আরবী বক্তব্যের, অথবা কি প্রসঙ্গে এইগুলি বলা হইয়াছে তাহার অনুসন্ধান না করিয়াই। চুরির জন্য শাস্তি (৮.১ অধ্যায় দ্রষ্টব্য) ইহার একটি উৎকৃষ্ট উদাহারণ। অন্যান্য ক্ষেত্রে প্রযুক্ত আইন, যথা ব্যভিচারের জন্য প্রস্তরাঘাতে মৃত্যুদণ্ড, হাদিস হইতে গৃহীত এবং কোরানের সহিত ইহার কোন সংযোগ নাই (১০.৩ অধ্যায়, নির্বাচন নং ১ দ্রষ্টব্য)। অথচ একান্ত দুঃখের বিষয় যে আফগানিস্থানের তালিবান সহ অন্যান্য বহুব্যক্তির ধারণা যে এই আইন কোরান হইতে উদ্ভূত। প্রকৃতপক্ষে তালিবানরা কোরান সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞ এবং তাহাদের প্রদত্ত বিধান সমূহের উৎপত্তি হাদিস হইতে। তাহাদের এইরূপ বর্বরোচিত আইন পালনের কারণ ইহাই।

বাস্তব ব্যবহারে আইনের প্রয়োগ দ্বারা ইহার ফলাফল বিচার করা যায়। দৃষ্টান্ত স্বরূপ, সুদান ‘শরিয়ত’ আইন প্রয়োগ করিয়াছে এবং অকৃতকার্য হইয়াছে। আর একটি উদাহরণ পাকিস্তান, যেখানে সামরিক শাসনের অধীনে শরিয়ত আইন প্রয়োগ করা হইয়াছিল, কিন্তু ইহার রাজনৈতিক আন্দোলন স্পষ্টরূপে প্রতীয়মান করে যে ইহাও অকৃতকার্য হইয়াছে। সৌদি আরবের স্বৈরশাসক রাজত্ব জনসাধারণের উপর শরিয়ত আইনের কঠোর প্রয়োগ দ্বারা ইহার শাসন রক্ষা করিতেছে, অথচ ইহার বিশাল সম্পদ-ভোগকারী মুষ্টিমেয় ব্যক্তিগণ বিদেশে নানাবিধ ইসলাম-বিরুদ্ধ কর্মে তাহাদের সম্পদের বৃহৎ অংশ অপব্যয় করিতেছে। পূর্বেই বলা হইয়াছে যে, সৌদিদের শরিয়ত আইন সমূহ হানাবালি মতবাদের উপর প্রতিষ্ঠিত, এবং ফলে এই আইন বিষয়ে কোরানের গুরুত্ব অতি নগণ্য। অন্যান্য কতক মুসলিম রাষ্ট্র উপলব্ধি করিয়াছে যে, বর্তমান সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে শরিয়ত আইনের প্রয়োগ প্রায় অসম্ভব। সুতরাং তাহারা কিছু ইসলামী আইনের সহিত কিছু পশ্চিমদেশীয় আইনের ধারা (সিভিল ও ক্রিমিনাল) সংযুক্ত করিয়াছে। ইহা উপলব্ধি করা কঠিন নহে যে, শরিয়ত আইন সমূহের অপ্রচলিত এবং অতি কঠোর প্রকৃতির জন্য, বিশেষ কৃতকার্যকতার সহিত ইহার প্রয়োগ বর্তমান যুগে সম্ভব হয় না। শরিয়ত আইনের আর একটি দিক হইতেছে যে, ইহা বিভিন্ন মতবাদের ব্যক্তিগণের বিচারের সময় বিভিন্ন মতবাদের মধ্যে মতবিরোধের সৃষ্টি করে। বিচারকগণ বাস্তবে ইহা এই বলিয়া এড়াইয়া যান যে, যে কেহই যে কোন মতবাদেই বিশ্বাসী হউক না কেন, তথাপিত সে মুসলিম। কিন্তু প্রকৃত সত্য যে, ইহা ইসলামে শ্রেনী বীভেদের সৃষ্টি করিয়াছে, যাহা কোরানে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। এই সকল সমস্যা অতিক্রম করিবার একমাত্র উপায় হইল, কোরানের মূল আইনের ভিত্তিতে শরিয়ত আইনকে গঠন করা। যদিও সত্যকার ইসলামী রাষ্ট্র ব্যতীত ইহার পূর্ণ সম্ভাবনা নাই, তথাপি আইন প্রণয়নের বিষয়ে আমাদিগকে সর্বদা কোরান-প্রদত্ত সততা ও ন্যায় নীতি সম্পর্কে বিবেচনা করিতে হইবে। ইহা ব্যতীত নৈতিকভাবে দৃঢ়, এবং সামাজিক ভাবে মঙ্গলজনক, একটি সমাজ ব্যবস্থা পুনরাবর্তন কোনরূপেই সম্ভব নয়।

References: (প্রসঙ্গ সূত্র)

১.Modernisation of Legal System in Muslim Countries. Summary of an introductory address included in ref: no. 9., by Dr. Sobhi Mahmassani. p. 7.
২.Development of Muslim Theology Jurisprudence and Constitutional Theory by Duncan B. Macdonald. p. 77, second para. Published by Premier Book House, 4/5 Katchery Road, Lahore, Pakistan. p. 77.
৩.The Principles of Law-making in Islam, by G.A. Parwez.
Meezan Publications: 27-B Shahalam Market, Lahore, Pakistan.
p. 54.
৪.Ibid,. p. 54, 55.
৫.Ibid,. p. 55.
৬.Ibid,. p. 55, 56.
৭. Conspiracies against the Qur’an, by Dr. S. A. Wadud.
Khalid Publishers, P.O. Box 4190, Lahore-54600, Pakistan
৮. The Principles of Law-making in Islam, by G.A. Parwez.
Meezan Publicastions: 27- B Shahalam Market, Lahore, Pakistan.
p. 61.
৯.Ibid,. p. 62, 63.
১০.Ibid,. p. 63.
১১.Ibid,. p. 66.
১২.Ibid,. p. 77.
১৩.Ibid,. p. 77-79.
১৪.Quranic System of Law, by Allama Enayatullah Mashriqi-Akhuwat Publications, Rawalpindi, Pakistan. p. 10.
১৫.Ibid,. p. 12.
১৬.Ibid,. p. 12, 13.





Home Next >>