১৩.৪ শিয়াদের আইন-প্রণালী (৭)



শিয়াদের আইন-বিষয়ক বাস্তব কর্তৃত্ব ‘মুজতাহিদ’ নামক ধর্ম ও আইনবীদদের অধিকারে। ধর্মীয় শিক্ষা প্রদানের ক্ষমতা যাহ প্রকৃতপক্ষে ‘গুপ্ত ইমাম’ (Hidden Imam)-এর অধিকার (নিম্নে দ্রষ্টব্য) তাহা এখন তাহাদের হস্তেই ন্যস্ত বলিয়া অনুমিত হয়। এইরূপে মুজতাহিদগণ এখন শিয়াদের পরিচালনা করিবার মূল কর্তৃত্বের প্রতিনিধি। শিয়ারা বিভিন্ন সুন্নী মতবাদের আইনসমূহ এবং তাহাদের বৈচিত্র্যের মধ্যে একতার ধারণা সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করে।

শিয়া সম্প্রদায়ের উৎপত্তি হযরত আলী হইতে, এবং কেবলমাত্র রাজনৈতিক কারণে। কেহ কেহ বিশ্বাস করিত যে, রাসূলের মৃত্যুর পর তাঁহার জামাতা হিসাবে আলীর ন্যায়সঙ্গতভাবে খলিফা হওয়া উচিত ছিল। সুন্নীদের ন্যায় শিয়ারাও পাচটি দলে বিভক্ত, যাহাদের মধ্যে ‘ঘালি’ নামক দলটি এখন অবলুপ্ত। প্রধান দল, ‘ইমামিয়া’র ১২ জন ইমাম। শিয়ারা ইমামদিগকে আল্লাহর প্রতিনিধি বলিয়া মনে করে। অতএব ইমামরা কোন ভুল করিতে পারেন না এবং ফলে, ইমামদের বক্তব্যের উপর নির্ভর করিয়া আইনের ক্রমবিকাশ হইয়াছে। ইমামিয়া গোষ্ঠির শাখা-প্রশাখার উৎপত্তি আলী হইতে। প্রসঙ্গক্রমে, উল্লেখ্য যে হযরত আলীকে চতুর্থ খলিফারূপে সুন্নী মুসলিমরাও উচ্চ সম্মান দেয়। ইমামিয়া গোষ্ঠির শেষ অর্থাৎ ১২ নং ইমাম একটি গুহায় নিরুদ্দেশ হন, এবং তাহার কোন চিহ্ন পাওয়া যায় নাই। শিয়াদের বিশ্বাস যে, আল্লাহ্ তাঁহাকে গুপ্ত করিয়া রাখিয়াছেন, এবং পরে উপযুক্ত সময়ে পৃথিবীকে ত্রাণ করিতে তাহার পুনরাবির্ভাব হইবে। তাঁহার অদৃশ্য হইবার কারণ ইহাই। অন্যান্য উপগোষ্ঠিগুলিও প্রধান গোষ্ঠি হইতে উদ্ভুত, কিন্তু ইহার সহিত একমত নহে। এক উপগোষ্ঠির উৎপত্তি আলীর অপর স্ত্রী হানফিয়ার পুত্র মোহাম্মাদ বিন হানফিয়া হইতে, যাহাকে বলা হয় ‘কায়সানিয়া’ উপগোষ্ঠী; কিন্তু এখানেও তাঁহার অনুসারীরা বিশ্বাস করে যে, আল্লাহ্ তাঁহাকে এখন গোপন রাখিয়াছেন এবং তিনি সমস্ত কিছুর সঠিকতা নিশ্চিত করিতে মৃত্যু হইতে প্রত্যাবর্তন করিবেন। অপর এক উপগোষ্ঠির নাম ‘যায়েদিয়া’। তাহারা ৪র্থ ইমাম জয়নুল আবেদিন পর্যন্ত বিশ্বাস করে এবং অতঃপর তাহারা ইমাম যায়েদকে অনুসরণ করে। পরিশেষে, ‘ইসমাইলিয়া’ উপগোষ্ঠি, একটি ক্ষুদ্র সম্প্রদায় কিন্তু অতিরিক্ত ধনী। ইহারা ৬ষ্ঠ ইমাম জাফর সাদিক পর্যন্ত বিশ্বাস করে, এবং তাহার পরে ইমাম ইশমাইলকে। ইহারা নিজেদের ব্যাপারে অতিরিক্ত গোপনতা অবলম্বন করে। কিন্তু ইদানীং এই গোষ্ঠির একব্যক্তি একটি গ্রন্থ লিখিয়া ইহাদের কার্যক্রম সম্পর্কে খানিকটা প্রকাশ করিয়াছে। শিয়ারা মূলতঃ সুন্নী মতবাদের আইনসমূহে বিশ্বাস করে না





Home Next >>