২. আরবী ভাষায় জ্ঞান ও ইহার আবশ্যকতা



কোরান যেহেতু আরবী ভাষায় অবতীর্ণ হইয়াছিল, অতএব আরবী ভাষার জ্ঞান অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। আরবী ভাষায় জ্ঞান না থাকিলেও আরবী সম্বন্ধে কিছু কিছু বিষয় জানা উপযোগী।

আরবী একটি অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত ভাষা, যাহাতে শব্দের অর্থ নির্ভর করে শব্দমূল বা ধাতুর উপর; এবং শব্দমূল সাধারণতঃ তিন-অক্ষর বিশিষ্ট হয়। “অর্থের বিভিন্নতার আভাস পাওয়া যায় প্রথমে মূল সরল শব্দটিকে স্বরবর্ণ সংযুক্ত (vowelling) করিয়া, এবং দ্বিতীয়তঃ উপপদ (prefix), প্রত্যয় (suffix) ও শব্দাভ্যন্তরে ধাতুর সহিত শব্দ যোগ দিয়া। এইরূপে মূল শব্দ ‘সালিমা’, ‘নিরাপদ থাকা’ (আক্ষরিক ভাবে, সে নিরাপদ ছিল) ইহাতে আমরা পাই ‘সাল্লামা’ (উদ্ধার করা), ‘আসলামা’ (নিবেদন করা এবং ইহার দ্বারা মুসলিম হওয়াও বুঝায়), ‘ইসতালামা’ (পাওয়া), ‘ইসতাসলামা’ (আত্মসমর্পণ করা), ‘সালামুন’ (শান্তি), ‘সালামাতুন’ (নিরাপত্তা, ভাল থাকা), ‘মুসলিমুন’ (একজন মুসলিম)”। দুর্ভাগ্যজনক, কিন্তু সত্য যে একমাত্র যখন এই ভাষার গঠন সম্বন্ধে কিছুটা ধারণা থাকে, এবং বিশেষ করিয়া, যখন ক্রিয়াপদগুলি হইতে উদ্ভূত বিভিন্ন দুর্বল বা প্রবল রূপগুলি সম্বন্ধে জ্ঞান জন্মে, কেবল তখনই আরবী অভিধান সহজে ব্যবহার করা যাইবে, কারণ সমস্ত আরবী অভিধানে শব্দগুলি উহাদের মূলকে ভিত্তি করিয়া বিন্যস্ত থাকে এবং কেবলমাত্র ঐ মূল শব্দগুলিই বর্ণানুক্রমিক বিন্যস্ত হয়। সুতরাং যাহাদের কিছুটা আরবী ভাষার ধারণা আছে তাহারা সহজেই আরবী-ইংরেজী অভিধান অথবা শব্দ-কোষের সাহায্যে একটি আরবী শব্দের অর্থ, ইহার মূল শব্দ হইতে বাহির করিতে পারে। যাহারা কোরানকে গভীর ভাবে বুঝিতে চাহে, তাহাদের জন্য প্রয়োজন কোরানের একটি বর্ণনানুক্রমিক সূচী (concordance), যাহাতে যে সমস্ত আয়াতে কোন বিশেষ শব্দ পাওয়া যায় তাহার শব্দমূল সহ সংশ্লিষ্ট আয়াতগুলিকে তালিকাভুক্ত করিয়া দেখান হইয়াছে।

নিঃসন্দেহে, কোরানকে গভীরতর রূপে বুঝিতে হইলে আরবী ভাষায় জ্ঞান অত্যাবশ্যক এবং ইহা সহজেই সাধিত হইতে পারে যদি বিদ্যালয়ের প্রাথমিক স্তরে এই ভাষা শিক্ষা দেওয়া হয়, বিশেষ করিয়া যে সকল দেশে মুসলিম প্রচুর পরিমাণে সংখ্যাগরিষ্ঠ। ইউরোপ যেমন প্রমাণ করিয়াছে যে, শিশুরা তিন চারটি ভাষা সহজেই শিখিতে পারে, মুসলিম দেশসমূহে তাহা না করিতে পারিবার কোন কারণ নাই। মুসলিম দেশসমূহ যাহা করে তাহা হইতেছে অক্ষর জ্ঞান শিক্ষা দেওয়া , যাহাতে না বুঝিয়া তোতাপাখির ন্যায় কোরান পড়িতে পারা যায়। এই সম্পর্কে উল্লেখ না করিয়া পারিনা, একসময় একটি বিরাট সম্মেলনের উদ্ধোধনে এক হাফেজ (যিনি সমগ্র কোরান মুখস্ত করিয়াছেন) কে কোরান হইতে কিছু আয়াত আবৃতি করিতে বলা হইয়াছিল; তিনি তাহা করিলেন, কিন্তু ইহার অর্থ জিজ্ঞাসা করিলে বলিতে পারিলেননা। বাস্তবিকই, মুসলিম দেশসমূহ এক শ্রেণীর লোক সৃষ্টি করিয়াছে যাহারা আরবীতে কোরান পড়িতে ও আবৃতি করিতে পারে, কিন্তু কোরানে কি নির্দেশ আছে সে বিষয়ে সম্পূর্ণ অজ্ঞ । ইহার ফল হইল, ইসলাম যদিও যাজকবৃত্তি অনুমোদন করেনা, ধর্মীয় আনুষ্ঠিকতা ইত্যাদি পরিচালিত করিবার জন্য মুসলিম সমাজে হাদিসগ্রন্থে দীক্ষিত যাজক সম্প্রদায়ের সৃষ্টি। আল্লাহর অনুগ্রহ লাভের উদ্দেশ্যে কোরান কেবলমাত্র তোতাপাখির ন্যায় আবৃত্তি করা হয়। ফলে এক মহান প্রত্যাদেশ মূলতঃ এখন ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানাদি পরিচালনার একটি অঙ্গে পরিণত হইয়াছে!

যাহাদের আরবীতে কোন জ্ঞান নাই তাহাদের জন্য, একটি মাত্র ইংরেজি শব্দ দ্বারা অনুবাদ সম্ভব নহে এইরূপ বিশেষ বিশেষ আরবী শব্দের ধারণা বুঝিতে পারা একান্ত প্রয়োজন। “দ্বীন” এইরূপ শব্দের একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ যাহা সাধারণতঃ গতানুগতিক ভাবে ‘ধর্ম’ অথবা ‘মাযহাব’ রূপে অনুবাদ করা হয় (নিম্নে দ্রষ্টব্য)। ইহাতে কোনরূপেই দ্বীন শব্দের অন্তর্নিহিত ভাবধারা প্রকাশিত হয় না। প্রায়শঃই আরবী শব্দের বিভিন্ন অর্থ হয়, এবং কোন শব্দের বোধগম্য অর্থ করিতে হইলে আয়াতের মধ্যে শব্দটি কি প্রসঙ্গে আলোচিত হইতেছে তাহা লক্ষ্য করিতে হইবে । এইভাবে পরীক্ষার জন্য কতকগুলি প্রয়োজনীয় শব্দের একটি তালিকা দেওয়া হইল: আল্লাহ্’ ‘আনফিকু’, ‘দ্বীন’, ‘হামদ’, ‘ইসলাম’, ‘কাফির’, ‘মোমিন’, ‘মুসলিম’, ‘মুশফিক’, ‘রব্ব্’, ‘রাহমান’, ‘রাহীম, ‘রিবা’, ‘সালাত’, ‘তাক‌ওয়া’ ইত্যাদি। এই সমস্ত শব্দের ব্যবহার ও অর্থবোধ সম্বন্ধে নিশ্চিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এই তালিকা আরও দীর্ঘ করা যাইবে। দৃষ্টান্ত স্বরূপ, ‘আল্লাহ্’ এবং ‘দ্বীন’ এই দুইটি শব্দের অন্তর্নিহিত ধারণা সম্পর্কে নিম্নে বিশেষভাবে আলোচনা করা হইল। উপরোল্লিখিত আরও কিছু শব্দ পরে এই পুস্তকের অংশ হিসাবে সংক্ষেপে আলোচিত হইবে।

আল্লাহ্ : ইহা নিখিল বিশ্বের প্রতিপালকের উপযুক্ত নাম। অন্যান্য নাম তাঁহার বিভিন্ন গুণাবলীর নির্দেশ দেয়। আল-তৌহীদ, বা ‘একত্ব’ নামে ১১২ নং সূরায় কোরান আল্লাহ্ সম্বন্ধে কিছুটা ধারণা দেয়: “বল আল্লাহ্ এক (‘আহাদ’)। আল্লাহ্ স্বনির্ভর (‘সামাদ’)। তাঁহার কোন সন্তান নাই এবং তিনি কাহারও সন্তান নহেন, এবং তাঁহার ন্যায় আর কিছুই নাই।”

আমরা আল্লাহ্ সম্বন্ধে আরও ধারণা পাই ইহার মূলের ধারণা সমূহ হইতে। ‘আল্লাহ্’ শব্দের ‘মূল’ হইতেছে ‘আলিফ-লাম-হে’, যাহা দ্বারা নিম্ন-বর্ণিত অর্থ ও গুণ প্রকাশ করা হয়: উদ্বেগ ও হতবুদ্ধিগ্রস্থ অবস্থায় যাঁহার আশ্রয় ও প্রতিরক্ষা কামনা করা হয়। যাঁহার বিশালতায় মানুষ হতবুদ্ধি ও বিহবল হয়। যাঁহার সর্বব্যাপি সার্বভৌমত্ব অবশ্যই মান্য করিতে হইবে, এবং সকল আনুগত্যই যাহার প্রাপ্য। যিনি দৃষ্টি শক্তির বাহিরে থাকেন,এবং যিনি অতিশয় মহিমান্বিত।

“উপরোক্ত অর্থ/গুণ সমূহ স্মরণে রাখিয়া, আল্লাহ্ নাম, যেমন কোরানে বর্ণিত হইয়াছে, তাহার অর্থ হইতেছে এমন একজন যিনি সর্বোত্তম কিন্তু মানব চক্ষুর দৃষ্টির বাহিরে অবস্থান করেন। যাঁহার মহিমা ও বিশালতার সম্মুখে মানুষের উপলব্ধি ও জ্ঞান অভিভূত হইয়া পড়ে। যাঁহার সার্বভৌমত্ব বিশ্ব ব্যাপী এবং বশ্যতা অবশ্যপালনীয়। তাঁহাকে স্বীকার করিয়া তাঁহার সার্বভৌমত্বকে স্বীকার করিতে হইবে এবং কোরানে প্রদত্ত তাঁহার বিধানসমূহ মানিতে হইবে”।

দ্বীন : দ্বীন (ইসলাম) সাধারণতঃ গতানুগতিক ভাবে ‘ধর্ম’ অথবা ‘মাযহাব’ বলিয়া অনূদিত হয়। কোরানের মতে ইসলামই হইতেছে দ্বীন, যাহার অর্থ একটি জীবন-ধারা, একটি সামাজিক পদ্ধতি। ‘মাযহাব’ শব্দ কোরানে কোথায়ও ব্যবহৃত হয় নাই। অতএব ইসলামকে একটি ধর্ম বা মাযহাব বলিয়া নির্দিষ্ট করা অশুদ্ধ। ‘মাযহাব’ শব্দ আক্ষরিক অর্থে বুঝায় মানুষের তৈরী একটা রাস্তা বা পথ, সেক্ষেত্রে ‘দ্বীন’ হইতেছে একটি সংহিতা (code), বিধান, অথবা পদ্ধতি, যাহা আল্লাহর নিকট হইতে প্রাপ্ত। সেইজন্য ‘মাযহাবে’ এত বিভিন্ন সম্প্রদায় আছে, কিন্তু দ্বীনে তাহা নাই। দ্বীন আল্লাহ্ কর্তৃক প্রকাশিত, ইহা সার্বজনীন, এবং ইহাতে কোন শ্রেণীবিভাগের স্থান নাই। শ্রেণীসমূহ মানুষের তৈরী, আল্লাহর নহে।

দ্বীনের শব্দমূল বিভিন্ন ধারণার ইঙ্গিত দেয়, যেমন : “ক্ষমতা, প্রাধান্য, কর্তৃত্ত্ব, সার্বভৌম ক্ষমতা, প্রভুত্ব, আধিপত্য, বিধান, সংবিধান, সরকার, রাজ্য, সিদ্ধান্ত, যথার্থ ফল, পুরস্কার ও শান্তি। এই শব্দ বাধ্যতা, বশ্যতা ও আনুগত্য অর্থেও ব্যবহৃত হয়।

উপরোক্ত প্রায় সকল প্রকার অর্থে কোরানে এই শব্দ প্রায় ৭৯টি আয়াতে ব্যবহৃত হইয়াছে”।

সুতরাং কেন আমাদের ‘দ্বীনে’র প্রয়োজন ? আল্লাহ্ বলেন:

(২:২১৩) মানব-গোষ্টি একটিই জাতি ছিল, এবং আল্লাহ্ সুসংবাদ ও সতর্কবাণী সমেত নবীদিগকে পাঠাইয়াছিলেন, এবং তিনি তাঁহাদের সহিত সত্যপূর্ণ গ্রন্থ (কেতাব) দিয়াছিলেন যাহাতে ইহা, যে সমস্ত বিষয়ে মানুষের মধ্যে মতভেদ আছে তাহার মীমাংসা করিতে পারে; কিন্তু গ্রন্থ-প্রাপ্ত সম্প্রদায় সুস্পষ্ট নিদর্শন পাওয়ার পর পরস্পর বিদ্বেষের মাধ্যম ব্যতিরেকে মত-বিরোধী হয় নাই। বিশ্বাসীরা যে বিষয়ে মতভেদী হইয়াছিল, আল্লাহ্ তাঁহার করুণাবশতঃ তাহাদিগকে সত্যের পথে চালিত করিয়াছিলেন [...]

উপরের আয়াতে ‘দ্বীনে’র উদ্দেশ্যকে সুস্পষ্ট করা হইয়াছে: ইহা মনুষ্যদিগকে একটি মিলিত জাতিতে একত্রিত করা। কোরানের মূল নির্দেশের উপর প্রতিষ্ঠিত একটি সত্যকার ইসলামিক রাষ্ট্রের আওতায়ই তাহা সম্ভব। দুঃখের বিষয়, বর্তমানে এইরূপ কোন রাষ্ট্রের অস্তিত্ব নাই। যাহা আছে তাহা কেবল জাতীয় স্বার্থ ও আদর্শে গঠিত জাতিভিত্তিক রাষ্ট্র সমূহ।

References: (প্রসঙ্গ সূত্র)
১. A new Arabic Grammar, by J.A. Haywood and H.M. Nahmud.
Publisher Lund Humphries, London, p.1.
২. Exposition of the Qur’an, by Gulam Ahmed Parwez.
Tolu-E-Islam Trust (Regd) 25B Gulberg, Lahore11, Pakistan, p.6.
৩. Ibid., p.12.





Home Next >>